বাংলাদেশে গ্যাসের দাম ৭৫ শতাংশ বাড়ানোর প্রয়োজন : প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা

প্রথম সময়: ডেস্ক নিউজ | সংবাদ টি প্রকাশিত হয়েছে : ১২. জুলাই. ২০১৯ | শুক্রবার

এই প্রতিবেদন শেয়ার করুন

প্রথম সময় ডেস্ক

 

বাংলাদেশের  উনয়ন ধরে রাখতে  গ্যাসের দাম বাড়ানোর দরকার।  জাতীয় সংসদের তৃতীয় অধিবেশনের (বাজেট অধিবেশন) সমাপনী ভাষণ দেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। বৃহস্পতিবার, ১১ জুলাই।  পিআইডি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, যাঁরা গ্যাসের দাম নিয়ে আন্দোলন করছেন, তাঁরা প্রকৃত অবস্থা চিন্তা করছেন না, অথবা উন্নয়নটা দেখতে পাচ্ছেন না। এটা দুঃখজনক। গ্যাসের দাম ৭৫ শতাংশ বাড়ানোর প্রয়োজন ছিল। কিন্তু জনগণের কথা চিন্তা করে তা করা হয়নি। ৩২ দশমিক ৮ শতাংশ দাম বাড়ানো হয়েছে।

আজ বৃহস্পতিবার জাতীয় সংসদের তৃতীয় অধিবেশনের (বাজেট অধিবেশন) সমাপনী ভাষণে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এসব কথা বলেন। ধর্ষণের বিচারসংক্রান্ত আইন আরও কঠোর করা প্রয়োজন বলেও মন্তব্য করেন সংসদ নেতা।

এর আগে বিরোধী দলীয় উপনেতা রওশন এরশাদ বলেন, ‘আমরা উন্নয়ন চাই, কিন্তু গ্যাসের দাম বাড়াতে চাই না।’

রওশনের বক্তব্যের প্রসঙ্গ টেনে সংসদ নেতা শেখ হাসিনা বলেন, গ্যাসের দাম নিয়ে যথেষ্ট কথাবার্তা ও আন্দোলন হয়েছে। গ্যাসের দাম বৃদ্ধির জন্য অনেকে সমালোচনা করেছেন, প্রতিবাদ করেছেন।

গ্যাসের দাম বাড়ানোর কারণ ব্যাখ্যা করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, দেশের নিজস্ব প্রাকৃতিক গ্যাস চাহিদার তুলনায় অপ্রতুল। চাহিদা ছিল ৩৭০০ এমএমসিএফটি কিন্তু সরবরাহ করা যাচ্ছিল মাত্রা ২৬০০ এমএমসিএফটি। এই ব্যাপক চাহিদার পরিপ্রেক্ষিতে এলএনজি আমদানির সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়। এর অংশ হিসেবে এক হাজার এমএমসিএফটি এলএনজি গ্যাস আমদানি শুরু হয়েছে।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, দেশের নিজস্ব প্রাকৃতিক গ্যাস প্রতি ঘন মিটারে উৎপাদন খরচ হয় ৭ দশমিক ৫০ টাকা। এলএনজির খরচ পড়ে ৩৩ দশমিক ৭৫ টাকা। এ জন্য প্রতি বছর ৩০ হাজার কোটি টাকা অতিরিক্ত দিতে হয়।
প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘আমাদের ৭৫ শতাংশ মূল্য বৃদ্ধি করার প্রয়োজন ছিল। কিন্তু সেটা করা হয়নি। আমাদের প্রতি ঘনমিটারের এলএনজি আমদানির মূল্য পড়ছে ৬১ দশমিক ১২ টাকা। কিন্তু সেখানে আমরা নিচ্ছি ৯ দশমিক ৮০ টাকা। অর্থাৎ ৫১ দশমিক ৩২ টাকা আর্থিক সহায়তা করা হচ্ছে। ফলে এর জন্য ১৯ হাজার ৩১০ কোটি টাকা ভর্তুকি দিতে হচ্ছে। এটাও আবার সব ধরনের ট্যাক্স আর শুল্ক বাদ

 

এই সংবাদটি পড়া হয়েছে ৩৪ বার




Archives