ইতালিতে বঙ্গবন্ধুর ঐতিহাসিক স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবস পালন করেছে

প্রথম সময়: ডেস্ক নিউজ | সংবাদ টি প্রকাশিত হয়েছে : 12. January. 2020 | Sunday

এই প্রতিবেদন শেয়ার করুন

শিমুল রহমান:প্রতিবেদক

১০জানুয়ারি বঙ্গবন্ধুর ঐতিহাসিক স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবস ও মুজিব বর্ষের ক্ষনগননা পালন করেছে ইতালী আওয়ামীলিগের দু’পক্ষই। অপর দিকে জাতীয় শ্রমিক লীগ ইতালী শাখার ভারপ্রাপ্ত সভাপতি মঞ্জুর আহমেদ মঞ্জুর সভাপতিত্বেও যথাযোগ্য মর্যাদায় দিবসটি পালিত হচ্ছে। জাতীয় শ্রমিক লীগ ইতালী শাখার ভারপ্রাপ্ত সভাপতি মঞ্জুর আহমেদ মঞ্জু টেলিকনফারেন্সে জানান ” বর্তমান ইতালী আওয়ামীলিগের বিভাজনের ফলে জাতীয় শ্রমিক লীগের নেতা কর্মীরা মনে করছে, দলে শৃঙ্খলা ফিরিয়ে আনতে ঐক্যবদ্ধতা প্রয়োজন।তিনি বিভাজিত নেতা কর্মীদের উদ্দেশ্য বলেন- পদ পদবীর লোভে যদি দলকে বিভাজন করা হয় তবে বিরোধীদলীয়রা সে সুযোগ কাজে লাগাবে। তাই দলের সিনিয়র নেতাদের অনুসরণ করে কিংবা তাদের সঙ্গে আলোচনার মাধ্যমে বিভাজিত না হয়ে ঐক্যবদ্ধ থাকতে হবে। আগামী সম্মেলনে সকল নেতাকর্মীদের অংশগ্রহণ করে যোগ্যতার প্রমান দিন। সম্মেলনের মাধ্যমে যোগ্যতার ভিত্তিতে ইতালী আওমী লীগে
নেতৃত্বের স্থান হবে । সম্মেলনের মাধ্যমে পুরাতন নেতৃত্ব কিংবা নতুন কোনো নেতৃত্ব আসে- শ্রমিক লীগ সেই নেতৃবৃন্দকে স্বাগত জানিয়ে, ইতালী আওয়ামী লীগের নেতৃত্ব মেনে চলবে, জাতীয় শ্রমিক লীগ ইতালী শাখার নেতৃবৃন্দ।তিনি আরো বলেন দলের এই ক্রান্তিলগ্নে জাতীয় শ্রমিক লীগ মনে করে এখনই দলকে সুসংগঠিত করতে হবে, তাই জাতীয় শ্রমিক লীগ মাঠে নেমেছেন। বঙ্গবন্ধুর স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবসটি উপলক্ষে জাতীয় শ্রমিকলীগ আয়োজিত অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ইতালী আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি হাবিব চৌধুরি প্রধান বক্তা হিসেবে উপস্থিত আছেন ইতালী আওয়ামী লীগের যুগ্মসাধারণ সম্পাদক হাদিউল ইসলাম হাদী।
বঙ্গবন্ধুর স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবসে আওয়ামী লীগের একাংশে আয়োজিত অনুষ্ঠানে ইতালী আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি ( একাংশ) জামান মোক্তারের সভাপতিত্বে ও ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক( একাংশ) মান্নান মাদবর মঞ্জুয় সঞ্চালনায় এবং অন্যাংশে ইতালী আওয়ামী লীগের যুগ্মসাধারণ সম্পাদক আফতাব বেপারী ও আবু তাহেরের যৌথ সঞ্চালনায়, আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি হাজী মোঃ জসিম উদ্দিনের সভাপতিত্বে বঙ্গবন্ধুর স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবসের আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে।
ইতালিতে আওয়ামী নেতাকর্মীরা বিভিন্ন স্থানে এ দিবসটি পালন করলেও পোস্টার ব্যানারে দেখা গেছে ইতালি আওয়ামী লীগের দুটি ভাগের মধ্যেই ভারপ্রাপ্ত সভাপতির দাবিদার অনেকেই। ইতালি আওয়ামী লীগ যদি একটি সংগঠন হয়ে থাকে তাহলে প্রশ্ন-একটি সংগঠনে চলমান দুজন সভাপতি কিংবা ভারপ্রাপ্ত সভাপতি কিভাবে হতে পারে? এ বিষয়ে উভয় পক্ষ একে অপরকে অবৈধ কমিটি বলে দাবি করছে,যা বিভিন্ন সময়ে সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যম, পত্রপত্রিকায়ও দেখা যায়।
একপক্ষের দাবী ইদ্রিস ফরাজী ও হাসান ইকবাল 2012 সালে সম্মেলনের মাধ্যমে নির্বাচিত হয়েই দলের দায়িত্বভার গ্রহণ করেছেন এটা যেমন সত্য, তেমনি তাদের কমিটির মেয়াদ উত্তীর্ণ হবার পরে তারা আবারোও পুরাতন কমিটি নবায়ন করে ইতালী আওয়ামী লীগের ক্ষমতায় অধিষ্ঠিত হন।
কিন্তু সেই নবায়নকৃত কমিটির মেয়াদ শেষ হয়ে যাবার পরেও, তারা জোর করে ক্ষমতা দখল করে রেখেছে। এর থেকে মুক্তির দাবিতে ইতালী আওয়ামী লীগের জাহাঙ্গীর ফরাজী কমিটি গঠিত ।
ইতালি আওয়ামী লীগ হাসান ইকবাল -ইদ্রিস ফরাজী কমিটির নেতৃবৃন্দ বলেন – রাতের আধারে কিছু সংখ্যক নেতাকর্মী এ কমিটির ঘোষণা দেন, যার কোনো বৈধতা নেই বা অবৈধ কমিটি। এদিকে বিভিন্ন সময়ে বিভিন্ন অনুষ্ঠানে ইতালি আওয়ামীগের জাহাঙ্গীর ফরাজী ও এম এ রব মিন্টুর কমিটি বৈধ বলে দাবি করেছেন। ।
ইতালী আওয়ামী লীগের উভয় কমিটি একে অপরকে অবৈধ দাবি করে, নিজেকে বৈধ সভাপতি / সাধারণ সম্পাদক দাবি করে- সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যমে একে অপরকে বহিষ্কার করেছে এমনটাও দেখা গেছে। এর পরিপ্রেক্ষিতে ইতালী আওয়ামী লীগের সাধারণ নেতাকর্মীরা দ্বিধাদ্বন্দ্বে ভুগছে কি না ? প্রশ্ন আপনাদের কাছে।

বঙ্গবন্ধুর স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবসের অনুষ্ঠানে প্রচার গুলোতে দেখা যায় ইতালী আওয়ামী লীগের উভয়পক্ষের সভাপতি / সাধারণ সম্পাদক ইতালির মাটিতে উপস্থিত নেই। তবুও দলের কার্যক্রম কে গতিশীল রাখতে উভয় পক্ষই ভারপ্রাপ্ত সভাপতি / সাধারণ সম্পাদক/ যুগ্মসাধারণ সম্পাদক দিয়ে প্রিয় নেতার স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবস পালন করেছে। এটাই হলো দলের প্রতি সাধারণ নেতাকর্মীদের ভালোবাসা।
ইতালী আওয়ামী লীগের যে দুটি বড় পদ নিয়ে এত মারামারি, এত লেখালেখি এত কোন্দল, প্রশ্ন দলে সেই শীর্ষ চার নেতা ইতালির মাটিতে না থেকেও খন্ড খন্ড ভাবে যে অনুষ্ঠান আয়োজন করে চলেছে,এতে কি প্রকাশ করে ? তাহলে কে বাংলা সেই প্রবাদ বাক্যের মত বলতে হবে “আমে দুধে মিশে যাবে আটি গড়াগড়ি খাবে”।
এতকিছুর পরেও প্রিয় নেতার স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবস উদযাপন করেছে, আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীরা। এতেই প্রমাণিত হয় নেতাকর্মীরা দলের জন্য নিবেদিত প্রান।

এই সংবাদটি পড়া হয়েছে ৭৯ বার




Archives