পাকিস্তান শান্তির আশায় ভারতীয় পাইলটকে ছেড়ে দেবে আজ : ইমরান খান

প্রথম সময়: ডেস্ক নিউজ | সংবাদ টি প্রকাশিত হয়েছে : ০১. মার্চ. ২০১৯ | শুক্রবার

এই প্রতিবেদন শেয়ার করুন

প্রথম সময় ডেস্ক:

 

পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান জানিয়েছেন, পাকিস্তানে তাদের হাতে আটক ভারতীয় বিমান বাহিনীর পাইলটকে আগামীকাল (শুক্রবার) ছেড়ে দেয়া হবে।

পাকিস্তানী সংসদের এক যৌথ অধিবেশনে ভাষণ দেয়ার সময় তিনি এই ঘোষণা করেন।

তিনি বলেন, বিতর্কিত কাশ্মীর প্রশ্নে উত্তেজনার পটভূমিতে দু’পক্ষের মধ্যে শান্তির আকাঙ্ক্ষায় ঐ পাইলটকে মুক্তি দেয়া হচ্ছে।

ভারতীয় বিমান বাহিনীর উইং কমান্ডার আভিনন্দন ভার্থামানের মিগ-২১ জেট বিমানটি পাকিস্তান গতকাল (বুধবার) গুলি করে ভূপাতিত করে এবং তাকে আটক করে।

এর আগে পাকিস্তানের পররাষ্ট্রমন্ত্রী শাহ্ মেহ্‌মুদ কুরেশি ইঙ্গিত করেছিলেন যে, ভারতীয় পাইলটের মুক্তির প্রশ্নে তারা আলোচনা করতে প্রস্তুত।

উইং কমান্ডার আভিনন্দন ভার্থামানকে মুক্তি দেওয়ার যে ঘোষণাকে স্বাগত জানিয়েছে ভারতীয় বিমান বাহিনী।

তারা জানিয়েছে, বাহিনী এখন অপেক্ষা করছে উইং কমান্ডারের ফিরে আসার।

আভিনন্দন ভার্থামানকে মুক্তি দেয়ার ঘোষণায় ভারতের গণমাধ্যমের একাংশে বলা হচ্ছে যে এটা নরেন্দ্র মোদীর কড়া ভূমিকার জন্যই সম্ভব হয়েছে

পাকিস্তান যেদিন দাবি করেছিল যে জানমালের যাতে কোন ক্ষতি না হয়, সেইভাবেই তারা ভারতের বেসামরিক লক্ষ্যবস্তুর ওপরে বোমা ফেলেছ, সেটা কতটুকু সত্যি?

ভারতীয় বিমান বাহিনী এখন অভিযোগ করেছে যে পাকিস্তানী বিমান বাহিনী বুধবার যে হামলা চালিয়েছিল, তার মূল লক্ষ্য ছিল সামরিক ঘাঁটিই।

ভারত বলছে, পাকিস্তান অন্তত কুড়িটি বিমান নিয়ে হামলা চালিয়েছিল।

সেগুলির মধ্যে এফ-১৬ যুদ্ধ বিমানও ছিল, আর তা থেকে শুধু বোমা নয়, ছোঁড়া হয়েছিল মিসাইলও।

জম্মু এবং কাশ্মীরের রাজৌরি জেলার পশ্চিম দিকে সুন্দরবনি এলাকা দিয়ে ওই বিমানগুলি ভারতের আকাশ সীমায় প্রবেশ করে বলে ভারত সরকার অভিযোগ করেছে।

রেডারে ধরা পরার সঙ্গে সঙ্গেই মিগ-২১, সুখোই-৩০ এবং মিরাজ-২০০০ জঙ্গীবিমান পাঠানো হয় পাকিস্তানী বিমানগুলিকে বাধা দেওয়ার জন্য।

তখনই শুরু হয় আকাশ-যুদ্ধ।

পাকিস্তানী বিমান থেকে বেশ কিছু বোমা ফেলা হয় ভারতের সামরিক ঘাঁটির চত্বরে, যদিও ভারতের দাবী, বড় কোনও ক্ষয়ক্ষতি হয় নি ওই সব বোমায়।পাকিস্তানের সামরিক মুখপাত্র অবশ্য আগেই বলেছিলেন যে পাকিস্তানী বোমা ভারতের সামরিক অঙ্গনে ফেলা হলেও সামরিক স্থাপনা বা ভবন থেকে তা ছিল বেশ দূরে।

পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খানও বলেছিলেন, বুধবার সকালের হামলার উদ্দেশ্য কাউকে হত্যা করা বা ক্ষতি করা ছিল না। তারা শুধুমাত্র পাকিস্তানের ক্ষমতার বিষয়টি দেখাতে চেয়েছেন

ভারতীয় বিমান বাহিনীর এয়ার ভাইস মার্শাল আর. জি. কে. কাপুর সংবাদ মাধ্যমকে জানিয়েছেন, “আমাদের হাতে প্রচুর সাক্ষ্য রয়েছে, যা দিয়ে আমরা প্রমাণ করতে পারি যে এফ-১৬ যুদ্ধ বিমান ব্যবহার করা হয়েছিল ঐ হামলায়

:শান্তির আকাঙ্ক্ষায় ভারতীয় পাইলটকে ছেড়ে দিচ্ছে পাকিস্তান

বৃষ্টিমুখর দিনে ‘অলস’ সময় পার ভোট কর্মকর্তাদের

“পাকিস্তানের এফ-১৬ বিমানগুলিতে থেকে আকাশ থেকে আকাশে ছোঁড়ার ‘আমরাম’ ক্ষেপণাস্ত্র থাকে, তার টুকরো পাওয়া গেছে রাজৌরির পূর্ব দিকে, ভারতীয় সীমার অভ্যন্তরে। “পাকিস্তান যে দাবি করছিল যে তাদের বিমান হামলায় এফ-১৬ ব্যবহার করা হয় নি, সেটা অসত্য,” বলেন এয়ার ভাইস মার্শাল আর. জি. কে. কাপুর।

প্রতিটি বিমানেরই যে ইলেকট্রনিক সিগনেচার থাকে, তা থেকেই বোঝা যায় যে ঠিক কোন বিমান ভারতীয় সীমানায় প্রবেশ করেছে বলে তিনি মন্তব্য করেন।

একটি পাকিস্তানী এফ-১৬ জঙ্গীবিমানকে যে গুলি করে নামানো হয়েছে, সেই দাবি বুধবারই করেছিল ভারত।

বলা হয়েছিল বিমানটি নিয়ন্ত্রণ রেখার অপর দিকে কিছুটা গিয়ে ভেঙ্গে পরে। ভেঙ্গে পরা এফ-১৬এর কয়েকটি টুকরো ভারতের সীমানার ভেতরে পরেছিল, সেগুলোও বৃহস্পতিবার সংবাদমাধ্যমের সামনে হাজির করা হয়। ভারত শাসিত কাশ্মীরের রাজৌরি থেকে পাওয়া ওই ক্ষেপণাস্ত্রের টুকরোও দেখানো হয় সংবাদ মাধ্যমকে

 

এই সংবাদটি পড়া হয়েছে ৫৬ বার







Archives