নুসরাত হত্যাকাণ্ড ১২ জন মিলে সভায় চূড়ান্ত করে হত্যার করে।

প্রথম সময়: ডেস্ক নিউজ | সংবাদ টি প্রকাশিত হয়েছে : ১৮. এপ্রিল. ২০১৯ | বৃহস্পতিবার

এই প্রতিবেদন শেয়ার করুন

অনলাইন ডেস্কঃ

 

 

বাংলাদেশ  যে ভাবে মাদ্রাসা ছাত্রী নুসরাত জাহান রাফিকে হত্যার করার জন্য ১২ জন মিলে সভা করে প্রথমে  খুনিরা। ফেনীর সোনাগাজীতে আগুনে পুড়িয়ে মাদ্রাসাছাত্রী নুসরাত জাহান ওরফে রাফিকে হত্যার ঘটনায় সরাসরি জড়িত থাকার কথা স্বীকার করে আদালতে জবানবন্দি দিয়েছেন মো. আবদুর রহিম ওরফে শরিফ। এ নিয়ে তিনজন স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিলেন।

বুধবার বেলা সাড়ে তিনটায় ফেনীর জ্যেষ্ঠ বিচারিক হাকিম শরাফ উদ্দিন আহমেদের আদালতে হাজির করা হয় আবদুর রহিমকে। সেখানে তিনি দায় স্বীকার করে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দেন। গতকাল মঙ্গলবার রাতে ঢাকার কামরাঙ্গীর চর এলাকা থেকে আবদুর রহিমকে গ্রেপ্তার করে পুলিশ।

মামলার তদন্তসংশ্লিষ্ট একটি সূত্র জানায়, আবদুর রহিম স্বীকারোক্তিতে বলেন, মাদ্রাসার অধ্যক্ষ সিরাজ উদদৌলার নির্দেশে ও পরামর্শে নুসরাতকে হত্যার জন্য গায়ে কেরোসিন ঢেলে আগুন লাগানো হয়। এ জন্য ২৮ ও ৩০ মার্চ দুই দফা কারাগারে থাকা মাদ্রাসার অধ্যক্ষের সঙ্গে দেখা করা হয়। ৪ এপ্রিল সকালে ‘অধ্যক্ষ সাহেব মুক্তি পরিষদের’ সভা করা হয়। রাতে ১২ জনের এক সভায় হত্যার পরিকল্পনা চূড়ান্ত ও দায়িত্ব বণ্টন করা হয়। তাঁর (রহিম) দায়িত্ব পড়ে মাদ্রাসার গেটে। সেখানে নুর উদ্দিন, আবদুল কাদেরও ছিলেন। মাদ্রাসার ছাদে বোরকা পরে ছিলেন শাহাদাত, জোবায়ের ও জাবের। এ ছাড়া ছাদে ছিলেন মণি ও পপি।

মামলার তদন্ত কর্মকর্তা ও পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশনের (পিবিআই) পরিদর্শক মো. শাহ আলম প্রথম সময়

কে বলেন, আবদুর রহিম স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছেন। এরপর তাঁকে কারাগারে পাঠিয়ে দেওয়া হয়।
পরিদর্শক শাহ আলম বলেন, মামলার দুই আসামি নুর উদ্দিন ও শাহাদাত হোসেন ওরফে শামীম এবং মো. আবদুর রহিম ওরফে শরিফসহ তিনজন স্বীকারোক্তিতে একই ধরনের কথা বলেছেন। তাঁদের স্বীকারোক্তি থেকেও মণির নাম উঠে আসে।

তদন্ত দলের ঘটনাস্থল পরিদর্শন
নুসরাত হত্যাকাণ্ড ও স্থানীয় পুলিশ প্রশাসনের দায়িত্ব নিয়ে প্রশ্ন ওঠায় পুলিশ সদর দপ্তর থেকে একটি তদন্ত দল বুধবার বিকেলে সোনাগাজী মাদ্রাসা ও নুসরাতদের বাড়ি পরিদর্শন করে। প্রধান পুলিশ সদর দপ্তরের মিডিয়া বিভাগের ডিআইজি মো. রুহুল আমিন তদন্ত দলের নেতৃত্বে দেন।
তদন্ত দলে ছিলেন পুলিশ সুপার মো. মোস্তফা কামাল, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার আবু সুফিয়ান, মাহমুদা আক্তার, পরিদর্শক মো. সালা উদ্দিন। এ ছাড়া ফেনীর অতিরিক্ত পুলিশ সুপার উক্য সিং, সোনাগাজী সার্কেলের সহকারী পুলিশ সুপার (সার্কেল) সাইকুল আহমেদ ভূঁইয়া, সোনাগাজী মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (চলতি দায়িত্বে) মো. কামাল হোসেন

ডিআইজি মো. রুহুল আমিন গণমাধ্যমের কর্মীদের বলেন, পুলিশ মহাপরিদর্শকের (আইজিপি) নির্দেশে তদন্ত দল সোনাগাজীতে এসেই তদন্ত শুরু করেছে। তিনি বলেন, দুই দিন সোনাগাজীতে থেকে নুসরাত হত্যাকাণ্ড ও পুলিশের দায়িত্ব পালনে কোনো অবহেলা ছিল কি না এবং এ ধরনের ঘটনা যাতে পুনরায় আর না ঘটে, সে বিষয়ে করণীয় নিয়ে তদন্ত করে ঢাকায় গিয়ে পুলিশ সদর দপ্তরে প্রতিবেদন দাখিল করবেন।
ঘটনাস্থল পরিদর্শন শেষে তদন্ত দল নুসরাতের বাড়িতে গিয়ে তাঁর পরিবারের সদস্যদের সঙ্গে কথা বলেন। পরে তাঁরা নুসরাতের কবর জিয়ারত করেন।

মানববন্ধন ও বিক্ষোভ কর্মসূচি
নুসরাত হত্যাকাণ্ডের বিচার ও সিরাজ উদদৌলার ফাঁসির দাবিতে বুধবারও ফেনী ও সোনাগাজীতে বিভিন্ন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের শিক্ষক-শিক্ষর্থীসহ বিভিন্ন শ্রেণি–পেশার মানুষ এবং সংগঠনের পক্ষ থেকে বিক্ষোভ ও মানববন্ধন কর্মসূচি পালিত হয়েছে।
সকালে ফেনী জেলা জজ আদালতের আইনজীবীরা, শহরের ট্রাংক রোডের স্কুল শিক্ষার্থীরা মানববন্ধন করে। ট্রাংক রোডের শিক্ষার্থীদের মানববন্ধনে যোগ দেন ফেনী-২ আসনের সাংসদ ও জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক নিজাম উদ্দিন হাজারী। তিনি তাঁর বক্তৃতায় নুসরাত হত্যাকাণ্ডে জড়িত ব্যক্তিদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দাবি করেন।
এ ছাড়া দিনভর শহরের শহীদ মিনার চত্বরসহ বিভিন্ন এলাকায় বিভিন্ন সংগঠনের আয়োজনে মানববন্ধন ও বিক্ষোভ পালিত হয়। সোনাগাজী উপজেলা সদরের জিরো পয়েন্ট এলাকায় মানববন্ধন কর্মসূচিতে বক্তব্য দেন পৌরসভার মেয়র রফিকুল ইসলাম, উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান জোবেদা নাহার, সোনাগাজী ইসলামিয়া ফাজিল মাদ্রাসার ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ মোহাম্মদ হোসাইন।
বক্তারা বলেন, নুসরাত হত্যাকারী অধ্যক্ষ সিরাজসহ জড়িত অন্যান্য আসামিদের ফাঁসিসহ দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবি করেন। এ ছাড়া পৌরসভার পক্ষ থেকে নুসরাতের নামে পৌরসভা এলাকায় একটি সড়কের নামকরণ করার ঘোষণা দেন পৌর মেয়র।

৬ এপ্রিল ফেনীর সোনাগাজীতে মাদ্রাসাছাত্রী নুসরাত জাহান রাফি আলিম পরীক্ষা দিতে কেন্দ্রে গেলে দুর্বৃত্তরা তাঁর গায়ে আগুন লাগিয়ে দেয়। গুরুতর অবস্থায় ওই দিন রাতে তাঁকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেওয়া হয়। গত বুধবার রাত সাড়ে নয়টার দিকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের বার্ন ইউনিটে নুসরাত মারা যান। এ হত্যাকাণ্ডে এখন পর্যন্ত ১৭ জনকে আটক করা হয়েছে। মামলার এজাহারভুক্ত আটজনের মধ্যে ৭ আসামিকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। এর আগে গত ২৭ মার্চ ওই মাদ্রাসার অধ্যক্ষ সিরাজ উদদৌলার বিরুদ্ধে শ্লীলতাহানির অভিযোগে মামলা করেন নুসরাতের মা। ওই মামলা তুলে নেওয়ার জন্য নুসরাত ও তাঁর পরিবারের ওপর চাপ দিচ্ছিলেন অধ্যক্ষের লোকজন। এরপর ৬ এপ্রিল নুসরাতের গায়ে আগুন দেওয়া হয়। অধ্যক্ষ সিরাজ উদদৌলা কারাগারে আছেন

এই সংবাদটি পড়া হয়েছে ১০৭ বার




Archives