বিশ্ববিদ্যালয়ের কাজ আসলে কী

প্রথম সময়: ডেস্ক নিউজ | সংবাদ টি প্রকাশিত হয়েছে : ১৮. সেপ্টেম্বর. ২০১৯ | বুধবার

এই প্রতিবেদন শেয়ার করুন

অনলাইন ডেস্ক;

আপনি বিশ্ববিদালয়ে পড়েন? আপনি কি ফেসবুকে স্ট্যাটাস দিয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের কাজ জানতে চান? তাহলে আপনি অপরাধ করেছেন, ক্ষমা না চাইলে আপনি চিরতরে বহিষ্কার৷ কারণ, উপাচার্য মহোদয় বিশ্ববিদ্যালয় চালু করেছেন, তাই আপনি সেখানে পড়তে পারছেন৷ এটুকু জেনে এবং মেনে নিয়েই আপনি ভালোয় ভালোয় শিক্ষাজীবন শেষ করুন৷

পাঠক, উপদেশমূলক গল্প এখানেই শেষ৷ আসুন এবার একটু খবরে চোখ বুলানো যাক৷ গোপালগঞ্জে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় (বশেমুরবিপ্রবি)-র আইন বিভাগের ছাত্রী ফাতেমা-তুজ-জিনিয়াকে সাময়িক বহিষ্কারের কারণ জানিয়েছেন বিশ্ববিদ্যালয়টির উপাচার্য৷ মঙ্গলবার সংবাদ সম্মেলনে উপাচার্য খোন্দকার নাসির উদ্দিন ওই বিষয়ে ব্যাখ্যা দেন৷

সংবাদ সম্মেলনে নাসির উদ্দিন বলেন, একাধিক অপরাধে ফাতেমা-তুজ-জিনিয়াকে বহিষ্কার করা হয়েছে৷ জিনিয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষকদের নিয়ে ফেসবুকে অশালীন ও কুরুচিপূর্ণ কথাবার্তা লিখেছেন, বিশ্ববিদ্যালয়ের ওয়েবসাইট, শিক্ষক-শিক্ষার্থীদের ফেসবুক ও ই-মেল আইডি হ্যাক করেছেন৷ এছাড়া তিনি ভর্তি পরীক্ষার ওয়েবসাইট হ্যাক করে পরীক্ষা বানচালের ষড়যন্ত্র করেছেন৷ উপাচার্যের দাবি, ওই ছাত্রী দুবার তাঁর ফেসবুক অ্যাকাউন্ট হ্যাক করেছেন৷ উপাচার্য জানান, ফাতেমা-তুজ-জিনিয়া যদি ভুল স্বীকার করে তাঁর কাছে আবেদন করেন, তাহলে বহিষ্কারাদেশ তুলে নেওয়া হবে

Khaled Muhiuddin

 

খালেদ মুহিউদ্দীন, প্রধান ডয়চে ভেলে বাংলা বিভাগ

 

১১ সেপ্টেম্বর ফাতেমা-তুজ-জিনিয়াকে সাময়িকভাবে বহিষ্কার করে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন৷ সেই সময় ফাতেমা-তুজ-জিনিয়া বলেছিলেন, ‘‘কীভাবে ফেসবুক আইডি হ্যাক করতে হয়, আমি তো সেটাই জানি না৷ তাছাড়া উপাচার্য স্যারের ফেসবুক হ্যাক করতে যাব কেন? আমি কোনো দিন বিশ্ববিদ্যালয়কে নিয়ে কোনো মন্তব্য করিনি৷ বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রশাসন নিয়ে তো প্রশ্নই ওঠে না৷”

দৈনিক প্রথম আলো বলছে, গোপালগঞ্জে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের সাত শিক্ষার্থীকে গত ছয় মাসে সাময়িক বহিষ্কার করেছে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন৷ বহিষ্কৃত ওই শিক্ষার্থীদের ‘অপরাধ’, ফেসবুকে বিরুদ্ধ মত জানিয়ে স্ট্যাটাস দিয়েছিলেন তাঁরা৷ পরে অবশ্য উপাচার্যের কাছে ক্ষমা চাওয়ায় তিনজনের বহিষ্কারাদেশ তুলে নেওয়া হয়৷

সাময়িক বহিষ্কৃত ফাতেমা-তুজ-জিনিয়া প্রথম আলোকে বলেন, ‘‘আমাকে যখন বহিষ্কারের চিঠি দেওয়া হয় সেখানে লেখা হয়েছে আমি উপাচার্যের ফেসবুক হ্যাক করার হুমকি দিয়েছি৷ কিন্তু আজ বলা হচ্ছে আমি হ্যাক করেছি৷ তাহলে কোনটা ঠিক? ফেসবুক কিভাবে হ্যাক করতে হয় সেটা তো আমার জানাই নেই৷” এই শিক্ষার্থী বলেন, ‘‘আমাকে উপাচার্য স্যার ক্ষমা চাইতে বলেছেন৷ কিন্তু আমি তো কোনো অপরাধই করিনি৷ ক্ষমা চাইব কেন

এই সংবাদটি পড়া হয়েছে ২৩ বার




Archives