বাংলাদেশে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হিসেবে শনাক্তের সংখ্যা এক লাখ দুই হাজার ২৯২।

প্রথম সময়: নিউজ ডেস্ক | সংবাদ টি প্রকাশিত হয়েছে : ১৯. জুন. ২০২০ | শুক্রবার

বাংলাদেশে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হিসেবে শনাক্তের সংখ্যা এক লাখ দুই হাজার ২৯২।

এই প্রতিবেদন শেয়ার করুন

প্রথম সময় অনলাইন ডেস্ক:

বাংলাদেশে করোনা স্থায়ী হতে পারে দুই বছরেরও বেশি সময়’ বাংলাদেশে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হিসেবে শনাক্তের সংখ্যা এক লাখ দুই হাজার জনে পৌঁছেছে।
গত ২৪ ঘণ্টায় নতুন করে ৩ হাজার ৮০৩ জনের করোনা শনাক্ত হয়েছে। আর মারা গেছেন ৩৮ জন। সব মিলিয়ে মারা গেছেন ১ হাজার ৩৪৩ জন।
বৃহস্পতিবার স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের অতিরিক্ত মহাপরিচালক (প্রশাসন) ডা. নাসিমা সুলতানা কোভিড-১৯ সংক্রান্ত নিয়মিত অনলাইন স্বাস্থ্য বুলেটিনে এ তথ্য জানান।

ব্রিফিংয়ে বলা হয়, নতুন করে মারা যাওয়া ৩৮ জনের মধ্যে ৩১ জন পুরুষ ও ৭ জন নারী। মোট আক্রান্তের ক্ষেত্রে মৃত্যুর হার ১.৩১ শতাংশ।

গতকাল বুধবার দেশে করোনায় সংক্রমিত ৪ হাজার ৮ জন শনাক্ত হওয়ার কথা জানানো হয়েছিল। মারা গিয়েছিলেন ৪৩ জন।

ব্রিফিংয়ের তথ্যমতে, দেশে গত ২৪ ঘণ্টায় ১৭ হাজার ৩৪৯টি নমুনা সংগ্রহ করা হয়। আর পরীক্ষা করা হয় ১৬ হাজার ২৫৯টি নমুনা। এতে নতুন করে শনাক্ত হয়েছেন তিন হাজার ৮০৩ জন।

এর আগের দিন ১৭ হাজার ৫২৭ জনের নমুনা পরীক্ষা করা হয়েছিল। এ পর্যন্ত পরীক্ষা হয়েছে ৫ লাখ ৬৭ হাজার ৫০৩টি নমুনা।

এদিকে, করোনা থেকে সুস্থ হয়েছেন আরও এক হাজার ৯৭৫ জন। এ নিয়ে দেশে মোট সুস্থ ব্যক্তির সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ৪০ হাজার ১৬৪ জন। এখন পর্যন্ত সুস্থতার হার ৩৯.২৬ শতাংশ।

দেশে ৫৯টি ল্যাবে (পরীক্ষাগার) করোনা পরীক্ষা করা হয়েছে।

গত ৮ মার্চ দেশে প্রথম করোনায় সংক্রমিত ব্যক্তি শনাক্তের ঘোষণা আসে। আর ১৮ মার্চ প্রথম মৃত্যুর ঘটনা ঘটে।

করোনার ঝুঁকি এড়াতে সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখা ও স্বাস্থ্যবিধি মানতে সবাইকে অনুরোধ করেছেন স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের অতিরিক্ত মহাপরিচালক (প্রশাসন) অধ্যাপক নাসিমা সুলতানা।

তিনি বলেন, সবাই সতর্ক থাকুন, সাবধান হোন।

এর আগে স্বাস্থ্য বুলেটিনে হাজির হন স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের মহাপরিচালক অধ্যাপক ডা. আবুল কালাম আজাদ।

তিনি বলেন, আমি নিজেও করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছিলাম। তবে এখন সুস্থ আছি। গত কয়েক দিন ধরে অফিস করছি।

সরকারি-বেসরকারি হাসপাতালে কোভিড ও নন-কোভিড সবার চিকিৎসার ব্যবস্থা গ্রহণ করা হচ্ছে বলে তিনি জানান।




Archives