বেগমগঞ্জে আওয়ামী লীগের দু’গ্রুপের সংঘর্ষ গোলাগুলি ॥ ককটেল বিষ্ফোরন॥ আহত ২০

প্রথম সময়: ডেস্ক নিউজ | সংবাদ টি প্রকাশিত হয়েছে : ১৮. সেপ্টেম্বর. ২০১৮ | মঙ্গলবার

এই প্রতিবেদন শেয়ার করুন

নোয়াখালী প্রতিনিধি:

নোয়াখালীর বেগমগঞ্জ উপজেলার চৌমুহনীতে আওয়ামী লীগের দুই গ্রুপের দফায়
দফায় সংঘর্ষে আহত হয়েছে অন্তত ২০ জন। এ সময় ব্যাপক গোলাগুলি, ককটেল
বিষ্ফোরণের ঘটনা ঘটে। এতে শহরময় আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়ে। এলাকায় উত্তেজনা বিরাজ
করছে।

সোমবার বিকাল থেকে সাড়ে ৩ টা থেকে ৬ টা পর্যন্ত এ সংঘর্ষ চলে।

জানা গেছে, সন্ত্রাস ও নৈরাজ্যের প্রতিবাদে বেগমগঞ্জ উপজেলা আওয়ামী লীগ
চৌমুহনীর পাবলিক হলে এক প্রতিবাদ সভার আয়োজন করে। বিকাল ৩ টায় প্রধান
অতিথি নোয়াখালী-৩(বেগমগঞ্জ) আসনের এমপি মামুনুর রশিদ কিরণ ও প্রধান বক্তা
জেলা পরিষদের প্রশাসক ডা: এবিএম জাফর উল্যাহ সভার স্থলে আসেন। বিকাল সাড়ে
৩ টার দিকে সভাস্থলে আসেন চৌমুহনী পৌর মেয়র আক্তার হোসেন ফয়সল। মূলত এর
পরই উত্তেজনা চড়িয়ে পড়ে সভারস্থলে। এমপি কিরণ গ্রুপ ও মেয়র ফয়সল গ্রুপের
মধ্যে প্রথমে ধাক্কাধাক্কির পর শুরু হয় ধাওয়া পাল্টা ধাওয়া। এক পর্যায়ে
তা রক্তক্ষয়ি সংঘর্ষে রুপ নেয়। চলে ব্যাপক গোলাগুলি ও ককটেল বিষ্ফোরণ।
পুলিশ বারবার চেষ্টা করেও উভয় পক্ষকে নির্বিত করতে ব্যার্থ হয়। বিকাল
সাড়ে তিন থেকে ৬ টা পর্যন্ত আড়াই ঘন্টাব্যাপী সংঘর্ষে উভয় গ্রুপের অন্তত
২০ জন আহত হওয়ার খবর পাওয়া গেছে। এর মধ্যে গুরুতর আহত আওয়ামী লীগ নেতা
আনোয়ার হোসেন বাবুল, যুবলীগ নেতা মাসুম ও অন্তরকে উপজেলা স্বাস্থ্য
কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়েছে।
ঘটনার পর থেকে চৌমুহনী শহর ও আশপাশের এলাকায় উত্তেজনা বিরাজ করছে।
এদিকে সংঘর্ষ চলাকালে চৌমুহনী শহরের দুই পাশের প্রধান সড়কে দীর্ঘ যানজটের
সৃষ্টি হয়। এতে সাধারণ মানুষ চরম দূর্ভোগে পড়েন।
অনেক বাস যাত্রী ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেন, জনগনের জন্য রাজনীতি হলেও আজ
রাজনীতি মানুষের দূর্ভোগের কারণ হয়ে দাঁড়িয়েছে। যাত্রীরা দেশে
অপরাজনীতির অবসান চান।
অপরদিকে সন্ধায় চৌমুহনীর পাবলিক হলে এক প্রেস বিফ্রিং এ এমপি মামুনুর
রশিদ কিরন বলেন, মেয়র ফয়সল আগে গোপনে সন্ত্রাস করলেও এখন প্রকাশ্যে আমার
লোকজনের উপর হামলা করেছে। চৌমুহনীর মানুষ তা দেখেছে। বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ
কখনো সন্ত্রাসকে প্র¯্রয় দেয়না। আমি ব্যক্তিগত ভাবেও সন্ত্রাসকে ঘৃনা
করি। সন্ত্রাস করে কেউ বেশি দিন টিকতে পারেনা। আমি বিষয়টি উপর মহলে
জানিয়েছি। এ সময় তিনি নেতাকর্মীসহ সবাইকে সন্ত্রাসের বিরুদ্ধে সজাগ থাকার
আহবান জানান।
তবে চৌমুহনী পৌর মেয়র আক্তার হোসেন ফয়সলের বক্তব্য নেয়ার জন্য মোবাইলে কল
করে তাকে পাওয়া যায়নি

এই সংবাদটি পড়া হয়েছে ১৭৮ বার







Archives